Friday, April 22, 2016

পিরামিড রহস্য


পৃথিবীর সপ্তম আশ্চর্যের একটি হলো পিরামিড প্রাচীন মিশরের শাসনকর্তা ছিলেন ফারাও রাজারা ফারাও রাজারাদের কবরের উপর নির্মিত সমাধি মন্দিরগুলোই পিরামিড হিসেবে পরিচিতি মিসরে সবমিলিয়ে প্রায় ৭৫টির মত পিরামিড আছে সবচেয়ে বড় এবং আকর্ষনীয় পিরামিড হচ্ছে ফারাও রাজা খুফুঽর পিরামিড যা গিজায় অবস্হিত এবং এটি তৈরি হয়েছিল খ্রিস্টপূর্ব প্রায় ৫০০০ বছর আগে, যার উচ্চতা প্রায় ৪৮১ ফুট এবং এর জমির পিরমাণ প্রায় ৭৫৫ বর্গফুট । এটি তৈরি করতে ১ লাখ শ্রমিকের সময় লেগেছিল প্রায় ২০ বছর । আর এই পিরামিড তৈরির মূল উপাদান ছিল বিশাল বিশাল পাথর খন্ড । আর এই পাথর খন্ডগুলোর এক একটির ওজন ছিল প্রায় ৬০ টন, আর দৈর্ঘ্য ছিল ৩০ থেকে ৪০ ফুটের মত । পাথর খন্ডগুলোর সংগ্রহ করা হয়েছিল দূর দুরান্তের বিভিন্ন পাহাড় থেকে এই পাথরগুলো এমনভাবে বসানো হতো যেন তাদের মাঝে একটুও ফাঁক না থাকে ।

ফেরাউনরা ছিল প্রাচীন মিশর রাজ্যের ধর্মীয় এবং রাজনৈতিক নেতা ফেরাউন শব্দটা শুধুমাএ পুরুষ শাসকদের বুঝাতো না, বরং মহিলা শাসকদের হ্মেত্রেও ব্যবহার করা হত ফেরাউনরা বিশ্বাস করত সূর্য দেবতা হরুস, পৌরাণিক শাসক এবং ওসিরিসের মৃত্যুতে ফেরাউনরা নিজেদেরকে দেবতা এবং সূর্যের বংশধর বলে মনে করত যার ফলে তারা তাদের বংশের বাইরে কাউকে বিয়ে না করে , নিজেদের ভাইবোনেদের মধ্যেই বিয়ে করত ফেরাউনরা মৃত্যুর পরবর্তী জীবন কে বিশ্বাস করত, তাই তাদের মৃতদেহকে পচন থেকে বাঁচাবার জন্য মমি বানিয়ে, স্বর্ণালঙ্কারে মুড়ে দৈনন্দিন জীবনের ভোগ-বিলাসের সরঞ্জামসহ পিরামিড এর নীচে সমাধিকক্ষে রেখে দিত